The Prime Minister wanted the record of the ministers Sheikh Hasina

মন্ত্রীদের আমলনামা চেয়েছেন প্রধানমন্ত্রী
মন্ত্রীদের আমলনামা চেয়েছেন প্রধানমন্ত্রী

In the first two years of the present government, Prime Minister Sheikh Hasina has been confined to a handful of decisions such as reshuffling, redistribution, promotion of one state minister, the appointment of two new state ministers.

After two years of government on January 8, the Prime Minister is starting to see the evaluation of the work of ministers, state ministers, and deputy ministers in a special way.

Responsible sources in both administrative and political fields have found such information. At the end of two years of government, how many days a member of the cabinet has been serving in which ministry and department, whose department has been changed, whose department has been redistributed, who has been in the cabinet for which term, who has been in the PM’s team for three consecutive terms. Prime Minister Sheikh Hasina is collecting news on these issues from multiple sources. The Prime Minister regularly took some general news about his team members. However, at the end of two years, many have been moved by the news of the search. According to sources in the Prime Minister’s Office, no one but the Prime Minister knows why the cabinet inquiry is being taken. Prime Minister Sheikh Hasina has passed the second year of the third term of the government for three consecutive terms. In the last decade, the Awami League president himself has been performing his duties as the head of government. When the new government was formed, his team members changed. However, after the formation of the government, he did not leave anyone out of the cabinet except for a big reason. As there are more new faces in the cabinet this time, there is a possibility of a big reshuffle through the overall evaluation, said the concerned people. Those in charge of the government, the party, and the administration were of the opinion that a major reshuffle in the cabinet would be required after one year. There were similar discussions after the first year was over; But in these two years, in July 2019, Imran Ahmed has been made the Minister of State in the Ministry of Expatriate Welfare. Begum Fazilatun Nesa Indira was appointed Minister of State for Women and Children Affairs. At that time, there was a lot of discussion about the addition of a few full ministers and the redistribution of several ministerial portfolios; But nothing else happened. Only later was the vacancy filled when the state minister of religion died of the corona. According to a top-level administrative source in the government, the prime minister took at least two years to evaluate the work of his team members after the formation of the government. The Prime Minister is therefore naturally inquiring. A member of the cabinet, speaking on condition of anonymity, told Kaler Kanth that no matter how heavy the cabinet is, the prime minister has to look at all aspects. But this time the Prime Minister has to take a lot more ‘load’ as he has started his journey with brand new ones. He can think of some changes in that judgment. However, there is less risk of anyone being left out. With the addition of a few full ministers, the existing ones are likely to be reshuffled and redistributed. The Rules Division of the Cabinet Division looks at the official matters of the cabinet reshuffle. Asked about the matter to the Chief and Additional Secretary of the Division, Sultan Ahmed, he said, “It is the sole prerogative of the Prime Minister. If there is any decision, he instructs the cabinet secretary. Then we can find out. So far there are no instructions in this regard. How the two years went: In the last two years, despite major natural disasters, there was no shortage of food production. But due to lack of management, the government has been criticized like last time. The Ministry of Food has failed to procure paddy and rice properly from farmers and mill owners. On the contrary, rice was not imported on time. It has been alleged that the people close to the food minister are getting more opportunities even after the approval of the delayed rice import. The people concerned think that the expected results did not come from the former rice trader. Rice prices are still rising. On the other hand, the Ministry of Commerce has been criticized for managing the supply and price of onions. And now the Ministry of Commerce is again being criticized for having the highest price of edible oil in the last 25 years. The Ministry of Liberation War is facing criticism over the list of freedom fighters. Despite several promises to publish the list of Razakars, it was not fulfilled. On the other hand, despite the initial criticism of the health minister’s forehead about Corona, he has returned to a good position in the end. In the beginning, there was a problem of coordination in the work of the Ministry of Posts, Telecommunications, and Information Technology. In this context, just five months after the formation of the government, in May 2019, the Minister of Posts, Telecommunications and Information Technology Mustafa Jabbar was reduced to the post of Telecommunication and Telecommunication Department. Mustafa Jabbar is under new criticism as the postage stamp issued on the occasion of the founding anniversary of the BCL on January 4 reads ’63rd founding anniversary of the East Pakistan Muslim BCL’. Three other changes were also made in the same order. Among them is Tajul Islam, Minister for Local Government, Rural Development and Cooperatives, while Swapan Bhattacharya, Minister of State for Local Government and Cooperatives, has been given charge of the Local Government Department. In addition, the Minister of State. Murad Hasan was given the charge of State Minister for Information from the Ministry of Health and Family Welfare. Some in the cabinet are also being criticized personally. Someone has been accused of making a gift of a car from a disputed businessman, or of someone else allocating a plot of land for the general public. On the other hand, some ministries and Bs have gained a reputation for good work

The government is suffering from the phobia of losing power: Nurul Haque said

The government is suffering from the phobia of losing power: Nurul Haque said
The government is suffering from the phobia of losing power: Nurul Haque said
Former vice-president (VP) of Dhaka University’s Central Student Parliament (Daksu) Nurul Haque Nur has said that the government is suffering from a phobia of losing power.
He said workers, teachers, and lawyers were attacked in the dark of night in the month of victory when the so-called government of the liberation war was in power. It is a shameful event for independence in 49 years.
The government does not want to listen to anyone. They are suffering from a phobia of losing power. If united, this dictatorship will not last.

Nurul Haque said this at a protest rally and human chain in front of the National Press Club in the capital at around 12:30 pm on Tuesday.
The rally was organized by the Student-Youth-Workers’ Rights Council in front of the National Press Club in protest of the attack on teachers and workers in the dark of night. The attack is reminiscent of the night of March 25, when the Pakistani aggressors attacked.
When someone comes to the streets with demand, the government thinks, realizing this, the mattress is shaken. In this panic, the government wants to suppress the voice of the people.
Kalakanun wants to silence the voice of the newspaper.
This is how the government wants to make Bangladesh a dictatorial state.

In the incident of breaking the sculpture of Bangabandhu, Nurul Haque said, the government party and the scholars have come to a confrontation with the sculpture.
This is an omen for the country.
This sculpture has been vandalized in a planned manner to destroy the peace and order of society. Islamophobia is spreading in society.
The ruling party Awami League, Juba League, and Chhatra League are spreading this hatred.
While in power, they are spreading religious hatred, creating a backdrop of religious violence. He said those who broke the sculpture of Bangabandhu in Kushtia should be brought to justice. The incident should be investigated by the judiciary.
Besides, the indiscriminate attack on the workers must also be brought to justice.

Rashed Khan, the acting convener of the Bangladesh Student Rights Council, said, “Students and youth cannot be suppressed by lawsuits.”
Bangabandhu taught how to stand by the oppressed people.
Let them hold meetings, let them talk. The constitution has given us political rights. ‘

  1. Another joint convener, Abu Hanif, said that in an independent country, citizens have the right to demand and protest.
    But the police are attacking. These should not be repeated.
    The game is being played with the rights of the people.
    Joint convener Farooq Hasan said it was issued two days ago and permission had to be sought before the rally. Teachers and workers in the early hours of the attacks on the police force.
    People will build position and mass resistance against those who have done these things.
  2. Mashiur Rahman, joint convener of Bangladesh Students ‘Rights Council, Arif Hossain, member secretary of workers’ rights, and Abdur Rahman, labor leader addressed the rally.

সুশান্তের মৃত্যুর তদন্তে নতুন মোড়,ফ্ল্যাট থেকে উদ্ধার ৫ ডায়েরি

 

 

অভিনেতা ​সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর পর তদন্তের স্বার্থে এবার বড় পদক্ষেপ নিচ্ছে মুম্বাই পুলিশ।
জানা যাচ্ছে, সুশান্তের ব্রান্দার ফ্ল্যাট থেকে ৫টি ডায়েরি উদ্ধার করা হয়েছে।
ওই ডায়েরি গুলি দেখে বিভিন্ন সূত্র খতিয়ে দেখবে পুলিশ।

সুশান্ত সিং

পাশাপাশি মৃত্যুর আগে অর্থাৎ গত ১০ দিন ধরে সুশান্ত যাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন, তাদেরও নোটিশ পাঠানো হবে।
তদন্তের স্বার্থেই ওই ব্যক্তিদের নোটিশ পাঠানো হবে এবং জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।

বন্ধু-
-বান্ধব থেকে পরিবার কিংবা ইন্ডাস্ট্রির লোকজন, মৃত্যুর আগে সুশান্ত যাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন, প্রত্যেককে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।
এসবের সঙ্গে সুশান্তের শেষ সিনেমা দিল বেচারা-র পরিচালক মুকেশ ছাবরাকেও পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদ করতে পারে।
গত ১৪ জুন মুম্বাইয়ের ব্রান্দার নিজের ফ্ল্যাটে আত্মহত্যা করেন সুশান্ত সিং রাজপুত।
সুশান্তের ময়নাতদন্তের রিপোর্টে তার মৃত্যুর কারণ হিসেবে আত্মহত্যার কথা সামনে উঠে এলেও, কেন অভিনেতা ওই পদক্ষেপ নিলেন, তা ভাবাচ্ছে প্রায় প্রত্যেককেই।
সেই কারণেই সুশান্তের চিকিৎসক, পরিবারের লোক, কাছের বন্ধুদের পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদ করতে পারে।

এসবের পাশাপাশি মুম্বাই পুলিশ ইতোমধ্যেই ইন্ডাস্ট্রির ৫ প্রযোজনা সংস্থাকে নোটিশ পাঠিয়েছে।
বলিউডের বেশ কয়েকজন বড় প্রযোজক এং পরিচালককেও এ বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।
সুশান্ত কেন আত্মহত্যা করলেন! পরিস্থিতির চাপে পড়েই কি এই পদক্ষেপ নিতে বাধ্য হয়েছেন তিনি, এমন বেশ কিছু বিষয় ভাবাচ্ছে পুলিশকে।

Daksu VP Nur said about the name of the new team

Daksu VP Nur said about the name of the new team

নতুন দলের নাম নিয়ে যা জানালেন ভিপি নুর
নতুন দলের নাম নিয়ে যা জানালেন ডাকসু ভিপি নুর
topstarbd
topstarbd

Dhaka University Central Student Parliament (Daksu) Vice President Nurul Haque Nur has announced the formation of a new political party.
In an interview with a national daily, he spoke in detail about the party’s goals and objectives.

Below is Nur’s interview – why the formation of a new political party?

Existing political parties speak of principles, but do not follow most of what is stated in their constitutions.
Though we talk about ideology as secular, nationalism, socialism, or democracy, in reality, it is not.

In this case, we will contain the needs of the people over time.

The main objective is the spirit of the liberation war and the constitution of the seventy-two.
I want to do something new as opposed to traditional politics or political trends.
There will be an advisory panel with senior citizens.
However, the team will be led by people under the age of 50.
What will be the name of the team? I haven’t fixed the name yet.
However, human rights will be given priority.
Such as Student Rights Council, Youth Rights Council, Expatriate Rights Council.
Committees are being formed with these names.
The word ‘right’ will also be in the name of the party.
Who will stay

Each team has professionals, we will have.
There will be a separate wing with students.
There will be a separate rights council to bring everyone together.
When these are over, we will move towards the team announcement. I am getting a response from innumerable people.
I am getting much more response than expected.
However, human rights will be given priority.
Such as Student Rights Council, Youth Rights Council, Expatriate Rights Council.
Committees are being formed with these names. The word ‘right’ will also be in the name of the team. Who will be there, how will they respond to the call?
There will be a separate wing with students.
There will be a separate rights council to bring everyone together.
When these are over, we will move towards the team announcement.
I am getting a response from innumerable people.
We are getting more responses than expected. What will be ideal? We want to move towards a mixed ideology.

What would be the norm?

We want to move towards a mixed ideology.
Radicalism or liberalism is again a completely conservative view, not that. We will be liberal.
The spirit of the liberation war and the constitution of the seventy-two will remain that idea.
I will follow the constitution of ’72, but I will not stay there.
I will work with what people will hold over time.

When can the team announcement come?

I would like to show a surprise at the announcement of the team.
There were plans to come next year.
But the extreme failure of the state system, especially in the Corona situation, has made me think more.
But the announcement will come at any time.

অবশেষে খোঁজ পাওয়া গেল বুবলির

অবশেষে খোঁজ পাওয়া গেল বুবলির

অবশেষে খোঁজ পাওয়া গেল বুবলির
অবশেষে খোঁজ পাওয়া গেল বুবলির

 

বেশ কয়েক মাস থেকে আড়ালে চলে গেছেন শবনম ইয়াসমিন বুবলি। সোশ্যাল মিডিয়াতেও নেই বুবিল। গণমাধ্যমকর্মীরা বুবলির খোঁজ পাওয়ার চেষ্টা করেও পাননি। এবার নিজেই আড়াল থেকে উঁকি দিলেন ‘অহংকার’র নায়িকা।তবে আড়াল ভেঙে নয়, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ইনস্টাগ্রামে বুবলিকে পাওয়া গেল। বেশ কয়েক মাস পর নতুন ছবি শেয়ার করেছেন তিনি। ক্যাপশন বিহীন ওই ছবিতে বুবলিকে কেমন তা কেবল তার ভক্তরাই বলতে পারবেন। যদিও এর আগে টুকটাক পোস্ট দিয়েছেন কিন্তু সেসব ছবি নতুন ছিল না।বুবলি আড়ালে যাওয়ার পর থেকে বেশ গুঞ্জন চলছে শাকিব-বুবলি জুটিকে নিয়ে। একটি সূত্র বলছে, হয়তো আর কোনো ছবিতে দেখা মিলবে না শাকিব-বুবলির। আবার
গুঞ্জন আছে বুবলি নাকি মা হওয়ার জন্যই দেশের বাহিরে গিয়েছেন! তবে খবর কতটা সত্য তা স্পষ্ট নয়।নিন্দুকেরা বলছেন, অপুর পথেই হাঁটছেন বুবলি { অপুর মতোই সন্তান কোলে নিয়ে কোনো টিভিতে দেখা মিলবে বুবলির } এসব রসালো খবর কেবল গুঞ্জনই বলা চলে।

বুবলী বাদ, এবার নতুন নায়িকার খোঁজে

শাকিব খান

তবে খবরের পেছনে আরো নতুন খবর থাকতে পারে। যেমন মেঘ কেটে গেলে আলো ফিরে আসে।

মোটরসাইকেল ব্যবহারকারীদের জন্য দারুণ সুযোগ দিল সরকার নিজের পছন্দমতো মোটরযানের নম্বর নেওয়ার সুযোগ করে দিয়েছে সরকার।

মোটরসাইকেল ব্যবহারকারীদের জন্য দারুণ সুযোগ দিল সরকার
নিজের পছন্দমতো মোটরযানের নম্বর নেওয়ার সুযোগ করে দিয়েছে সরকার।

 

 

মোটরসাইকেল ব্যবহারকারীদের জন্য দারুণ সুযোগ দিল সরকার নিজের পছন্দমতো মোটরযানের নম্বর নেওয়ার সুযোগ করে দিয়েছে সরকার।
মোটরসাইকেল ব্যবহারকারীদের জন্য দারুণ সুযোগ দিল সরকার নিজের পছন্দমতো মোটরযানের নম্বর নেওয়ার সুযোগ করে দিয়েছে সরকার।

 

topstarbd
topstarbd

তবে সেক্ষেত্রে প্রচলিত রেজিস্ট্রেশন ফি থেকে দুই থেকে সাত গুণ পর্যন্ত অতিরিক্ত ফি দিতে হবে। সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ থেকে মঙ্গলবার (৯ জুন) এ সং’ক্রা’ন্তপ্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। রেজিস্ট্রেশন নম্বরের ৬টি ডিজিট একই হলে (যেমন: ৫৫-৫৫৫৫, ৬৬-৬৬৬৬ নম্বর) রেজিস্ট্রেশন ফি প্রচলিত ফি’র ৬ গুণ হবে। তবে শুধু ৭৭-৭৭৭৭ নম্বরের ক্ষেত্রে ফি হবে প্রচলিত ফি’র ৭ গুণ।
রেজিস্ট্রেশন নম্বরের ৬টি ডিজিট জোড়া জোড়া হলে (যেমন: ৩৪-৩৪৩৪, ৪৫-৪৫৪৫ নম্বর) রেজিস্ট্রেশন ফি হবে প্রচলিত ফি’র পাঁচগুণ। রেজিস্ট্রেশন নম্বরের চারটি ডিজিট একই হলে (যেমন: ১১১১, ২২২২ নম্বর) রেজিস্ট্রেশন ফি প্রচলিত ফি’র চার গুণ হবে। রেজিস্ট্রেশন নম্বরের চারটি ডিজিট জোড়া জোড়া হলে (যেমন: ১৩১৩, ১৫১৫ নম্বর) রেজিস্ট্রেশন ফি প্রচলিত ফি’র তিনগুণ হবে। রেজিস্ট্রেশন নম্বরের চারটি ডিজিটের দুটি করে ডিজিট একই হলে (যেমন: ০০১১, ০০২২)
রেজিস্ট্রেশন ফি প্রচলিত ফি’র দ্বি’গু’ণ হবে বলে প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়েছে। প্রজ্ঞাপনে আরও বলা হয়, ”সড়ক পরিবহন আইন, ২০১৮” এর অধীনে বিধিমালা প্রণীত না হওয়া পর্যন্ত এ আইনে ক্ষ’মতাবলে সরকার মোটরযান রেজিস্ট্রেশনের সময় মোটরকার ও জিপের মালিকদের

করোনার সংক্রমণে শীর্ষ দশে বাংলাদেশ, পরীক্ষায় পিছিয়ে

করোনার সংক্রমণে শীর্ষ দশে বাংলাদেশ, পরীক্ষায় পিছিয়ে

topstarbd
topstarbd

দৈনিক ও গত এক সপ্তাহে নতুন করোনা রোগী শনাক্ত হওয়ার ক্ষেত্রে বাংলাদেশের অবস্থান শীর্ষ দশে। আর এ পর্যন্ত মোট আক্রান্তের বিবেচনায় বাংলাদেশ শীর্ষ ২০ দেশের মধ্যে আছে। কিন্তু এসব দেশের মধ্যে করোনার নমুনা পরীক্ষার ক্ষেত্রে সবচেয়ে পিছিয়ে দুই দেশের একটি বাংলাদেশ।

বাংলাদেশে প্রতি ১০ লাখ মানুষের মধ্যে গড়ে ২ হাজার ৮৭৬ জনের করোনা (কোভিড-১৯) শনাক্তকরণের পরীক্ষা হচ্ছে। বাংলাদেশের চেয়ে অল্প কম পরীক্ষা হচ্ছে মেক্সিকোতে। আর দক্ষিণ এশিয়ার আটটি দেশের মধ্যে তুলনা করলে বাংলাদেশের চেয়ে কম পরীক্ষা হচ্ছে কেবল আফগানিস্তানে।

দৈনিক ও গত এক সপ্তাহে নতুন করোনা রোগী শনাক্ত হওয়ার ক্ষেত্রে বাংলাদেশের অবস্থান শীর্ষ দশে। আর এ পর্যন্ত মোট আক্রান্তের বিবেচনায় বাংলাদেশ শীর্ষ ২০ দেশের মধ্যে আছে। কিন্তু এসব দেশের মধ্যে করোনার নমুনা পরীক্ষার ক্ষেত্রে সবচেয়ে পিছিয়ে দুই দেশের একটি বাংলাদেশ।

বাংলাদেশে প্রতি ১০ লাখ মানুষের মধ্যে গড়ে ২ হাজার ৮৭৬ জনের করোনা (কোভিড-১৯) শনাক্তকরণের পরীক্ষা হচ্ছে। বাংলাদেশের চেয়ে অল্প কম পরীক্ষা হচ্ছে মেক্সিকোতে। আর দক্ষিণ এশিয়ার আটটি দেশের মধ্যে তুলনা করলে বাংলাদেশের চেয়ে কম পরীক্ষা হচ্ছে কেবল আফগানিস্তানে।

যদিও বাংলাদেশে সংক্রমণ বৃদ্ধির এই সময়ে বিশেষজ্ঞরা পরীক্ষার সংখ্যা ও আওতা আরও বাড়ানোর পরামর্শ দিচ্ছেন। কারণ, পরীক্ষা বাড়লে আরও বেশিসংখ্যক আক্রান্ত ব্যক্তি শনাক্ত হবে। তাতে ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা চিহ্নিত করে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের ক্ষেত্রে সহজ হবে।
দেশে বর্তমানে ৫৯টি ল্যাবরেটরিতে কোভিড-১৯ শনাক্তকরণ পরীক্ষা হচ্ছে। এর মধ্যে ঢাকায় ২৯টি এবং ঢাকার বাইরে ৩০টি। গত ২৪ ঘণ্টায় ১৫ হাজার ৯৯০ জনের করোনা পরীক্ষা করা হয়েছে, যা এ পর্যন্ত এক দিনে সর্বোচ্চ পরীক্ষা। গত ১৪ মে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছিলেন, শিগগির দৈনিক পরীক্ষা ১৫ হাজারে উন্নীত করা হবে। এ ঘোষণার প্রায় এক মাস পরে গত বুধবার সেই লক্ষ্যে পৌঁছানো গেছে।

পরিসংখ্যান নিয়ে কাজ করা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারস শুরু থেকে করোনাবিষয়ক হালনাগাদ তথ্য দিয়ে আসছে। তাতে দেখা যায়, মোট আক্রান্তের সংখ্যায় শীর্ষ ২০টি দেশের তালিকায় বাংলাদেশের অবস্থান গতকাল পর্যন্ত ছিল ১৯তম।
ওয়ার্ল্ডোমিটারসের পরিসংখ্যানে দেখা যায়, বাংলাদেশে প্রতি ১০ লাখে ২ হাজার ৮৭৬ জনের করোনার পরীক্ষা করা হচ্ছে, যা শীর্ষ ২০ দেশের মধ্যে সবচেয়ে দ্বিতীয় কম। শীর্ষ ২০-এর মধ্যে সবচেয়ে কম পরীক্ষা হচ্ছে ১৪ নম্বরে থাকা মেক্সিকোতে। দেশটিতে প্রতি ১০ লাখে পরীক্ষা হচ্ছে ২ হাজার ৮৬৬ জনের। এর চেয়ে একটু ভালো অবস্থানে আছে ভারত ও পাকিস্তান। পাকিস্তানে প্রতি ১০ লাখে পরীক্ষা হচ্ছে ৩ হাজার ৬৬৭ জনের আর ভারতে ৩ হাজার ৮৮৯ জনের।

বাংলাদেশ ও দক্ষিণ আমেরিকার দেশ পেরুতে করোনা সংক্রমণ শনাক্ত হয় প্রায় একই সময়ে। পেরুতে প্রতি ১০ লাখে ৩৮ হাজার ৯২৭ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হচ্ছে। গতকাল পর্যন্ত দেশটিতে শনাক্ত হয়েছে ২ লাখ ১৪ হাজার ৭৮৮ জন রোগী।

দক্ষিণ এশিয়ার আটটি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের চেয়ে কম পরীক্ষা হচ্ছে শুধু আফগানিস্তানে। দেশটিতে প্রতি ১০ লাখে ১ হাজার ৩৮১ জনের পরীক্ষা করা হচ্ছে। ভুটানে প্রতি ১০ লাখে ২৬ হাজার ৬২২, নেপালে ১০ হাজার ৬৪৮, শ্রীলঙ্কায় ৩ হাজার ৮১৮ এবং মালদ্বীপে ৫৩ হাজার ৫৯৪ জনের পরীক্ষা করা হচ্ছে। উল্লেখ্য, মালদ্বীপের জনসংখ্যা সাড়ে পাঁচ লাখের মতো।

নতুন রোগী শনাক্তে শীর্ষ দশে আর মোট আক্রান্তের ক্ষেত্রে শীর্ষ ২০ দেশের মধ্যে বাংলাদেশ
এর মধ্যে দ্বিতীয় সর্বনিম্ন পরীক্ষা হচ্ছে বাংলাদেশে
বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্য অনুযায়ী, গত এক সপ্তাহে সবচেয়ে বেশি নতুন রোগী শনাক্ত হওয়া দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান দশম।
এই ১০টি দেশের মধ্যেও দ্বিতীয় সর্বনিম্ন পরীক্ষা হচ্ছে বাংলাদেশ। এখানেও সবচেয়ে কম পরীক্ষা হচ্ছে অষ্টম স্থানে থাকা মেক্সিকোতে। সংক্রমণের দিক থেকে বাংলাদেশের ঠিক পরেই ২০তম স্থানে থাকা কাতারে প্রতি ১০ লাখে ৯৯ হাজার ৯৫৯ পরীক্ষা হচ্ছে।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মিডিয়া সেলের আহ্বায়ক ও স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব হাবিবুর রহমান খান প্রথম আলোকে বলেন, গত কয়েকদিনে বেশ কয়েকটি নতুন পরীক্ষা কেন্দ্র যুক্ত হয়েছে। পরীক্ষার সংখ্যাও ধারাবাহিকভাবে বাড়ছে। পরীক্ষা বাড়ানোর চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। এ জন্য সরকারি প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোকেও অনুমতি দেওয়া হচ্ছে।
স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কেন্দ্রভিত্তিক ফলাফল বিশ্লেষণে দেখা যাচ্ছে, কুর্মিটোলা হাসপাতাল, কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ, যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, জামালপুরের শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ, রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালসহ কয়েকটি কেন্দ্রে অধিকাংশ সময় দিনে এক পালায় নমুনা পরীক্ষা করা হচ্ছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, ল্যাবে কর্মীসংকট থাকায় একাধিক পালায় পরীক্ষা করা যাচ্ছে না। মাঠপর্যায়ে প্রশিক্ষিত জনবলের অভাব থাকায় পর্যাপ্ত নমুনা সংগ্রহ করতেও সমস্যা হচ্ছে। তার ওপর নানা জটিলতায় একেক সময় একেক কেন্দ্রে পরীক্ষা বন্ধ থাকাতেও দৈনিক নমুনা পরীক্ষার সংখ্যা কমবেশি হচ্ছে। আবার কোনো কোনো কেন্দ্রে শুক্রবার পরীক্ষা বন্ধ থাকে

সরকার গঠিত করোনাবিষয়ক জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির আহ্বায়ক ও বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিলের সভাপতি মোহাম্মদ সহিদুল্লা প্রথম আলোকে বলেন, পরীক্ষার সংখ্যা ও আওতা বাড়লে জনগণের ভোগান্তি অনেকটাই কমবে। বর্তমানে যে কেন্দ্রগুলোতে পরীক্ষা হচ্ছে, সেগুলোতেই দৈনিক প্রায় ৩০ হাজার পরীক্ষা করা সম্ভব। সে জন্য লোকবল ও লজিস্টিক সাহায্য বাড়াতে হবে

 

 

বাজেটে যেসব পণ্যের দাম বাড়ছে ও কমছে

বাজেটে যেসব পণ্যের দাম বাড়ছে ও কমছে

 

একনজরে দেখেনিন এবারের বাজেটে যেসব পণ্যের দাম বাড়ছে ও কমছে

নতুন অর্থবছরের বাজেট বৃহস্পতিবার ঘোষণা করতে যাচ্ছে সরকার। এই বাজেটে বিভিন্ন কর কাঠামোয় যে পরির্বতনের ইঙ্গিত পাওয়া গেছে তাতে মোবাইল, ইন্টারনেট ও ধুমপানে খরচ বাড়ছে বলে ধারণা করা যাচ্ছে। পাশাপাশি স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রীসহ আমদানি ও স্থানীয় পর্যায়ে উৎপাদিত বিভিন্ন পণ্যের দাম কমতে পারে।তবে বিলাশদ্রব্য আমদানিকে আগের মতোই নিরুৎসাহিত করা হবে। জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) বিভিন্ন সূত্র থেকে এ ইঙ্গিত পাওয়া গেছে।করোনা বিপর্যয়ের মধ্যেই বৃহস্পতিবার অর্থমন্ত্রী আ. হ. ম. মুস্তফা কামাল বর্তমান সরকারের দ্বিতীয় বাজেট ঘোষণা করতে যাচ্ছেন।এ বাজেটে বিপর্যস্ত মানুষকে কর সুবিধা দিতে যাচ্ছে সরকার।
তবে যেসব খাত করোনা পরিস্থিতিতে তেমন ক্ষতির মুখে পড়েনি সেসব খাতের ওপর বাড়তি কর থাকার আভাস পাওয়া গেছে। এতে মোবাইল কল, ইন্টারনেট সেবা, বিড়ি-সিগারেটের দাম বাড়তে পারে। এছাড়া ব্যাংকে বেশি টাকা রাখলে বেশি শুল্ক পরিশোধ করতে হবে। আবগারী শুল্কের হারে কিছুটা পরিবর্তন আসছে।জানা গেছে, এবার বাজেটে অধিকাংশ ক্ষেত্রে কর সুবিধা দেয়ার চাপ সামলানোর জন্য টেলিকম সেবার ওপর ৫ শতাংশ সম্পুরক শুল্ক বাড়ানো হতে পারে। ফলে মোবাইল ফোনে কথা বলা, এসএমএস ও ইন্টারনেট ব্যবহারে খরচ বাড়বে। বর্তমানে টেলিকম সেবার ওপর ১০ শতাংশ সম্পুরক শুল্ক রয়েছে।এছাড়া মোবাইল কলের ১৫ শতাংশ ভ্যাট ও ১ শতাংশ সারচার্জ রয়েছে। সবমিলিয়ে অপারেটরদের ঘোষিত রেটে একশ’ টাকার কথা বললে কাটা হবে ১৩১ টাকা।
আজ বুধবার পর্যন্ত কাটা হচ্ছে ১২৬ টাকা। তবে ইন্টারনেট সেবার ওপর বর্তমান ভ্যাট ৫ শতাংশ। সে হিসাবে একশ’ টাকার ডাটা ব্যবহার করলে মূলত কাটা হবে ১২১ টাকা। তবে অপারেটররা সাধারণত কর যুক্ত করেই ডাটা প্যাকেজ বিক্রি করে থাকে। সেক্ষেত্রে প্যাকেজের দাম বাড়িয়ে দিতে পারে তারা।এদিকে তামাকজাত পণ্যের দাম বাড়তে পারে বলে ইঙ্গিত পাওয়া গেছে। বিড়ি-সিগারেট দাম স্ল্যাব অনুযায়ী বাড়ানোর ঘোষণা আসতে পারে। রাজস্ব আদায়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে এ খাতের। স্বাস্থ্য সুরক্ষায় প্রতিবছর এ পণ্যের দাম বাড়ানোর দাবি ওঠে বিভিন্ন পক্ষ থেকে।
এ প্রস্তাবটিও বাজেট ঘোষণার সাথে সাথে কার্যকর করার রেওয়াজ রয়েছে।এদিকে দেশি শিল্পকে সুরক্ষা দিতে আমদানিকৃত প্যাকেটজাত তরল দুধ, গুঁড়ো দুধ ও দুগ্ধজাত পণ্যের দাম বাড়তে পারে। তবে শিশুখাদ্য এর বাইরে থাকবে। পাশাপাশি বাড়তে পারে আমদানিকৃত বিলাসদ্রব্য যেমন: বডি স্প্রে, প্রসাধনী, জুস, প্যাকেটজাত খাদ্যের দাম। রিকন্ডিশন গাড়ি, আমদানিকৃত স্মার্টফোন, এসি, মোটরসাইকেল ও টায়ারের দামও বাড়তে পারে বলে ইঙ্গিত পাওয়া গেছে।এদিকে বিভিন্ন ক্ষেত্রেই কর সুবিধা দিচ্ছে সরকার। ভ্যাটে তেমন পরিবর্তন না আনলেও চলতি বছরে অধিকাংশ পণ্য আমদানিতে অগ্রীম করের যে বিধান আরোপ করা হয়েছিল তা প্রত্যাহার করা হচ্ছে। এতে বিলাশপণ্য ছাড়া অধিকাংশ আমদানিপণ্যের দাম কমতে পারে।এছাড়া বর্তমান প্রেক্ষাপটে পিপিপি, মাস্ক, ফেস শিল্ডসহ বিভিন্ন স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী আমদানী ও উৎপাদনে ভ্যাট ও শুল্ক অব্যাহতি আসছে। এতে এসব পণ্যের দাম কমতে পারে। এছাড়া বিভিন্ন খাতে ভ্যাটের হার, আগাম এবং টার্নওভার করও কমছে। শিল্পের কাঁচামালে শুল্ক কমিয়ে উৎপাদন খরচ কমানোর চিন্তাও আছে। এতে দেশে উৎপাদিত বিভিন্ন পণ্যের দাম কমবে বলে আশা করা যাচ্ছে

 

 

 

 

Bangla & English